অনলাইন থেকে আপনার আইডি কার্ড সংগ্রহ করুন

আজকের আর্টিকেলের টফিক অনলাইন থেকে আপনার আইডি কার্ড সংগ্রহ করুন এই সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করবো। তাই সম্পর্ন লেখাটি মনোযোগ দিয়ে পড়ুন।

বর্তমান সময়ে আমরা অধিকাংশ কাজ গুলো অনলাইন এর মাধ্যমে করার চেষ্টা করি। তাই বলা যায় অনলাইন আমাদের বর্তমান জীবনে অনেক সহজ সরল করে দিয়েছে।

অনলাইনে কাজ করার ফলে আমাদের সময় অনেকটা বেঁচে যায় এবং অল্প সময়ের মধ্যে অনেক সুবিধা পেয়ে থাকি।

তাছাড়া, আমাদের বিভিন্ন ধরনের কাজ এর জন্য সরকারি অফিসে যেতে হয় কিন্ত সময়ের অভাবে যেতে পারি না। তাই এই সব সমস্যা সমাধান করার জন্য আমরা অনলাইনে নিজেদের চাহিদা পূরণ করে থাকি।

জাতীয় পরিচয় পত্র বা আইডি কার্ড আমাদের দেশের প্রত্যেক নাগরিকের প্রয়োজন। তাই আইডি কার্ড আমাদের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। কারণ, এটা আমাদের প্রায় সব ধরনের কাজে ব্যবহার করা হয়।

আপনি যে বাংলাদেশের নাগরিক সেটার প্রমান করে আপনার জাতীয় পরিচয় পত্র বা আইডি কার্ড। আপনার যদি আইডি কার্ড না থাকে তাহলে অনলাইনের মাধ্যমে নিজের সকল তথ্য দিয়ে আইডি কার্ড তৈরি করতে পারবেন।

তাছাড়া, আপনার আইডি কার্ডে যদি ভুল থাকে তবে অনলাইনের মাধ্যমে সংশোধন করতে পারবেন। আবার, যারা নতুন ভোটার তাদের আইডি কার্ড অনলাইনে আবেদনের মাধ্যমে পাওয়া যাবে।

এর জন্য আপনাকে নির্বচন অফিসে গিয়ে ঘন্টার পর ঘন্টা লাইনে দাঁড়িয়ে থাকতে হবে না। মোট কথা আপনার আইডি কার্ডে যত ধরনের সমস্যা আছে, সেগুলো অনলাইনের মাধ্যমে সমাধান করতে পারবেন।

তাই, আজকের আর্টিকেলের মাধ্যমে আইডি কার্ড সস্পর্কিত যত প্রশ্ন আছে সেগুলো জেনে অনলাইন থেকে আপনার আইডি কার্ড সংগ্রহ করুন

নতুন আইডি কার্ড কিভাবে দেখব?

আপনি যখন নতুন আইডি কার্ডের জন্য আবেদন করবেন, তখন অনলাইনের মাধ্যমে নতুন আইডি কার্ড দেখতে পাবেন।

প্রথম যখন আপনি নতুন ভোটার হয়েছিলেন তখন একটি ফরমে আপনার সকল তথ্য লিখে নেওয়া হয়েছিলো এবং ফরমের নিচের একটি অংশ কেটে আপনাকে দেওয়া হয়েছিলো।

নতুন আইডি কার্ড কিভাবে দেখব

এই অংশকে বলা হয় ভোটার আইডি কার্ড স্লিপ বা ভোটার আইডি কার্ড সার্চ করার ফরম। অনলাইনে ভোটার আইডি কার্ড চেক করার জন্য এই ৮ সংখ্যার ফরম নম্বর লাগে।

এই ৮ সংখ্যার নম্বরটি ব্যবহার করে আপনি নিজের ভোটার আইডি কার্ড চেক করতে পারবেন। 

নিজেই নিজের ভোটার আইডি কার্ড দেখবো কিভাবে?

আপনি অনলাইনের মাধ্যমে নিজের আইডি কার্ড দেখতে পারবেন। এর জন্য আপনাকে যেতে হবে নির্বচন কমিশন এর অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে।

নিজেই নিজের ভোটার আইডি কার্ড দেখবো কিভাবে

ওয়েবসাইটে যাবার পরে উপরের ফরমে এনআইডি নম্বর বা ভোটার স্লিপ নম্বর, জন্ম তারিখ দিয়ে নিচের ক্যাপচা পূরণ ভোটার তথ্য দেখুন অপশনে ক্লিক করুন।

নতুন ভোটার আইডি কার্ড কবে দিবে?

আপনি যখন ভোটার হবেন তখন সরকারি একটি ভোটার ফরম পূরণ করতে হবে। এই ফরমটি জমা দেওয়ার পরে সরকার কতৃক আপনাকে জানিয়ে দেওয়া হবে নতুন ভোটার আইডি কার্ড কবে দেওয়া হবে।

সাধারণত নতুন ভোটার আইডি কার্ড পেতে ৩ থেকে ৬ মাস সময় লাগে। তাছাড়া, আপনার যদি জরুরী ভিত্তিতে ভোটার আইডি কার্ড কাজে লাগে, তাহলে জরুরী ভিত্তিতে আবেদন করে ভোটার আইডি কার্ড নিতে পারবেন।

তবে, আপনার জরুরী কাজের জন্য ভোটার আইডি কার্ড অনলাইন কপি নিয়ে নিজের জরুরী কাজের প্রয়োজন মিটাতে পারবেন।

ভোটার আইডি কার্ড অনলাইন কপি সংগ্রহের জন্য আপনাকে “নির্বচন কমিশন” (আগের লিংক) এই লিংকে গিয়ে অ্যাকাউন্ট রেজিষ্টার করে কপি সংগ্রহ করতে হবে।

ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন

আপনার ভোটার আইডি কার্ডের তথ্য যদি ভুল থাকে তাহলে অনলাইনের মাধ্যমে ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন করতে পারবেন।

আগে এই কাজটি অনেক ঝামেলা থাকলেও পরে সেটাকে বাংলাদেশ নির্বচন কমিশন অনলাইন প্রক্রিয়ার মাধ্যমে সহজ করে দিয়েছে।

আইডি কার্ড সংশোধন করার জন্য আপনাকে একটি ফরম পূরণ করতে হবে এবং আবেদনকারীকে কিছু নির্দেশাবালী অনুসরণ করতে হবে।

আপনাদের সুবিধার জন্য আমি আইডি কার্ড সংশোধন ফরম এবং নির্দেশাবালীর PDF ফাইল নিচের লিংকে দিয়ে দিয়েছি। আপনারা সেখান থেকে ফরম ডাউনলোড করুন এবং নির্দেশাবালী গুলো পড়ুন।

ভোটার আইডি কার্ড অনলাইন কপি

আপনার কোনো জরুরী কাজে যদি ভোটার আইডি কার্ড প্রয়োজন হয় এবং আপনি যেহেতু নতুন ভোটার হয়েছেন, সেহেতু আপনার কাছে আইডি কার্ড নেই তখন আপনি কি করবেন?

আপনার সেই জরুরী কাজে আপনি ভোটার আইডি কার্ড অনলাইন কপি ব্যবহার করতে পারবেন। আপনি নির্বচন কমিশন ওয়েবসাইট থেকে ভোটার নিবন্ধন নম্বরের স্লিপ দ্বারা ভোটার আইডি কার্ড অনলাইন কপি বের করতে পারবেন। 

ভোটার নিবন্ধন ফরমের স্লিপ নম্বর হারিয়ে গেলে কি করবেন?

কোনো কারণে আপনার ভোটার নিবন্ধন ফরমের স্লিপ নম্বর খুঁজে না পেলে বা হারিয়ে গেলে চিন্তা করবেন না। এই স্লিপ হারিয়ে গেলে নিকটস্থ থানার একটি জিডি করুন।

এরপর সরকারি তরফ থেকে আপনাকে মোবাইল এসএমএস এর মাধ্যমে জানিয়ে দেওয়া হবে। এভাবে আপনি ভোটার নিবন্ধন স্লিপ পেয়ে যাবেন।

মোবাইল নম্বর দিয়ে জাতীয় পরিচয় পত্র

আমাদের অনেকের মধ্যে একটি ভুল ধারণা রয়েছে সেটা হলো, মোবাইল নম্বর দিয়ে জাতীয় পরিচয় পত্রের তথ্য বের করা যায়। এটা সম্পর্ন ভুল ধারণা।

মোবাইল নম্বর দিয়ে জাতীয় পরিচয় পত্রের তথ্য শুধুমাত্র তারাই জানতে পারবেন, যারা নির্বচন অফিসের কর্মচারীবৃন্দ।

নির্বচন কমিশন অফিস ভোটার আইডি কার্ড অনুমোদন প্রাপ্ত যে সকল কর্মকর্তা আছেন তারা মোবাইল নম্বর দিয়ে ভোটার আইডি কার্ডের তথ্য জানতে পারবেন।

স্মার্ট কার্ড ডাউনলোড করার নিয়ম জেনে অনলাইন থেকে আপনার আইডি কার্ড সংগ্রহ করুন

আপনার স্মার্ট কার্ড ডাউনলোড করার জন্য নির্বচন কমিশন এর ওয়েবসাইটে যেতে হবে।

স্মার্ট কার্ড ডাউনলোড

এরপর স্মার্ট কার্ড ডাউনলোড করার অপশনে ক্লিক করুন। এখানে আপনি ভোটার আইডি কার্ডের পিডিএফ ফাইল এবং সফট কপি পেয়ে যাবেন।

পিডিএফ কপি ডাউনলোড করে স্মার্ট কার্ড বা ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড করে নিন।

যেসব প্রশ্ন গুলো ইন্টারনেট মানুষরা সার্চ করেন সেগুলো নিচে উল্লেখ করা হয়েছে। এই সব প্রশ্নের উত্তর জেনে অনলাইন থেকে আপনার আইডি কার্ড সংগ্রহ করুন

প্রশ্ন-

  • আমার ভোটার আইডি কার্ড দেখতে চাই?
  • ভোটার আইডি কার্ড চেক
  • ভোটার আইডি কার্ড তৈরি
  • আইডি কার্ড বের করার নিয়ম? 
  • নতুন ভোটার আইডি কার্ড করার নিয়ম? 
  • নতুন ভোটার আইডি কার্ড কবে দিবে?
  • জাতীয় পরিচয় পত্র সংশোধন করার নিয়ম?
  • ভোটার আইডি কার্ড জন্ম তারিখ সংশোধন করার নিয়ম? 
  • আইডি কার্ড অনলাইন কপি
  • ভোটার আইডি কার্ড কিভাবে বানানো?
  • ভোটার আইডি কার্ডের ঠিকানা পরিবর্তন ফরম
  • অনলাইনে ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন 
  • জাতীয় পরিচয় পত্র চেক করার নিয়ম?
  • এন আই ডি কার্ড সংশোধন
  • ভোটার নম্বর দিয়ে আইডি কার্ড
  • NID সংশোধন করার নিয়ম?
  • ন্যাশনাল আইডি কার্ড চেক
  • ভোটার আইডি কার্ড অনলাইনে কিভাবে পাব?
  • আইডি কার্ড দিয়ে কয়টি সিম রেজিষ্ট্রেশন হয়েছে?
  • নির্বচন কমিশন ভোটার আইডি কার্ড
  • জাতীয় পরিচয় পত্র সংশোধন অনলাইনে
  • হারানো আইডি কার্ড উত্তলনের আবেদন ফরম
  • ভোটার নম্বর দিয়ে আইডি কার্ড বের করা
  • ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড
  • নিবন্ধন স্লিপ দিয়ে আইডি কার্ড

অনলাইনে ভোটার আইডি কার্ড তৈরি করার নিয়ম?

প্রথমে আপনাকে নির্বচন কমিশন এর http://www.nvsp এর ওয়েবসাইটে লগইন করতে হবে।

এবার রেজিষ্ট্রেশন ফর নিউ ভোটার আইডি কার্ড অপশনে ক্লিক করুন বা due to shifting from another constituency অপশনে ক্লিক করুন।

একটি ফরম পাবেন সেটা পূরণ করতে হবে (নিজের ভাষা সিলেক্ট করে), মনে রাখবেন ফরমে যা লিখবেন ভোটার আইডি কার্ডে সেই লেখা আসবে।

এবার আপনাকে কিছু ডকুমেন্ট আপলোড হবে, যেমন – ছবির স্ক্যান কপি, ঠিকানা, বয়স প্রমান পত্র। 

সব কিছু ভালো করে দেখে নিয়ে শেষে সাবমিট করতে হবে।

আপনার জমা দেওয়া সকল তথ্য যদি ঠিক থাকে তাহলে ১ মাসের মধ্যে আপনার ভোটার আইডি কার্ড আপনার বাড়িতে পোষ্ট অফিসের মাধ্যমে পৌঁছে দেওয়া হবে।

শেষ কথা

আপনারা উপরের বিষয় গুলো জেনে অনলাইন থেকে আপনার আইডি কার্ড সংগ্রহ করুন। এই আর্টিকেল সম্পর্কে যদি কোনো প্রশ্ন থাকে নিচের কমেন্ট বক্সে লিখে জানাবেন।

এবং লেখাটি যদি আপনাদের উপকার আসে তাহলে বন্ধুদের সাথে শেয়ার করবেন।

Leave a Comment

Share via
Copy link
Powered by Social Snap