আইপি এড্রেস কি? কত প্রকার এবং কিভাবে বের করবো

0
471
আইপি এড্রেস কি? কত প্রকার ও কি কি এবং কিভাবে বের করবো
আইপি এড্রেস কি? কত প্রকার ও কি কি এবং কিভাবে বের করবো

বন্ধুরা আপনি যদি মোবাইলে বা কম্পিউটারে ইন্টারনেট ব্যবহার করে থাকেন তাহালে অবশ্যই আইপি এড্রেস কি (what is IP address) এই ব্যাপারে জানা জরুরি। আবার অনেকে হয়তো জানেন IP address কি সেই সম্পর্কে।

প্রত্যেকটি কম্পিউটার বা স্মার্টফোন এর ক্ষেত্রে IP address ব্যবহার করা হয়। IP address এর পূর্ণরুপ হলো ইন্টারনেট প্রোটোকল এড্রেস

তাই, এই Internet protocol address কে মানুষরা অনেক সময় IP number বা Internet address বলে। আপনাদের মনে হয়তো প্রশ্ন আসতে পারে ইন্টারনেট প্রোটোকল এড্রেস মানে কি?

তাহালে, চলুন নিচে থেকে জেনে আসি আইপি এড্রেস কি, নিজের IP address কিভাবে বের করবো, নেটওয়ার্ক প্রটোকল কি, আইপি এড্রেস কত প্রকার এই সম্পর্কে বিস্তরিত ভাবে।

আইপি এড্রেস কি? (What is IP address)

আমরা যখন মোবাইল বা কম্পিউটারে ইন্টারনেট ব্যবহার করি তখন বিভিন্ন তথ্য (information) বা ডাটা (data) গুলো বিভিন্ন server computer থেকে আদান প্রদান করি। 

বেশি ভাগ ইন্টারনেট ব্যবহার করার সময় আমরা যেকোনো ওয়েবসাইটের সাথে জড়িত তথ্য গুলো কম্পিউটার বা মোবাইলের ওয়েবসাইটের মূখ্য সার্ভার থেকে গ্রহণ করে থাকি। ওয়েবসাইটের সার্ভার থেকে ডাটা গুলো গ্রহণ করা পরে সেই ওয়েবসাই এবং তার মধ্যে থাকা কনটেন্ট গুলো দেখতে পায়।

উদাহরণ স্বরূপ

আপনি যখন ইউটিউবে ভিডিও দেখেন, তখন ইউটিউব সার্ভার থেকে ভিডিওটির সাথে জড়িত সকল তথ্য বা ডাটা গুলো ইন্টারনেটের মাধ্যমে নিজের মোবাইল বা কম্পিউটার ডিভাইসে গ্রহণ করছেন।

ইউটিউব সার্ভার থেকে ডাটা গুলো যখন আমাদের  মোবাইল বা কম্পিউটারে গ্রহণ করার জন্য ইউটিউবের প্রয়োজন হবে একটি এড্রেস। কারণ, ইন্টারনেটে এই ডাটা প্রদান করার জন্য ইউটিউব এর সেই সার্ভারটি সঠিক ঠিকানা ছাড়া কম্পিউটার ডিভাইস কখনো খুঁজে পাবে না।

ইন্টারনেট ব্যবহার করার সময় প্রত্যেক ডিভাইস গুলোর মধ্যে থাকা এই এড্রেস বা ঠিকানা গুলোকে IP address বা Internet protocol address বলে। আইপি এড্রেস এর মাধ্যমে ইন্টারনেটের এই বিশাল জালে আপনার ডিভাইসের ঠিকানা খুঁজে পাওয়া সম্ভব।

ইন্টারনেটে আপনার পরিচয় হিসাবে কাজ করে “IP এড্রেস”। এই এড্রেস সাধারণত চার (৪) সংখ্যার হয়ে থাকে। যেমন- ২৮.১০৭.২৮.১৩৭। ইন্টারনেটের মাধ্যমে আপনি যত গুলো ডাটা আদান প্রদান করছেন সব গুলো এই IP address এর মাধ্যমে।

আর একটি উদাহরণ,

আমি আগেই বলেছি IP address হলো ইন্টারনেটের একটি ঠিকানা বা পরিচয়। আপনি হয়তো বিভিন্ন সময় সংবাদপত্র বা টিভির মাধ্যমে শুনে থাকেন, ইন্টারনেটে বিভিন্ন ধরনের আআপত্তিকর ভিডিও বা ছবি আপলোড করার কারনে পুলিশ তাকে গ্রেফতার করেছে।

এখন প্রশ্ন হলো কোটি কোটি ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর মধ্যে পুলিশ তাকে কিভাবে ধরলো। এই প্রশ্নের সঠিক উত্তর হলো, ভিডিও বা ছবি আপলোড করা ব্যাক্তির আইপি এড্রেস এর মাধ্যমে।

ইন্টারনেটে আইপি এড্রেস হলো ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর ঠিকানা। ইন্টারনেট ব্যবহার করা প্রতিটি মোবাইল বা কম্পিউটার এর ক্ষেত্রে একটি নেটওয়ার্ক প্রোটোকল আইপি রয়েছে। 

এবার, যখন ঔ ব্যাক্তি ইন্টারনেটে ভিডিও বা ছবি আপলোড করেছিলো তখন অবশ্যই ip address এর মাধ্যমে করেছিলো। যার ফলে পুলিশ তাকে অনেক সহজে গ্রেফতার করতে পারছে।

আশাকরি, সহজে বুঝতে পারছেন আইপি এড্রেস কি (what is ip address).

IP address কি?

নেটওয়ার্ক প্রোটোকল এড্রেস হলো এক ধরনের সংখ্যার লেভেল যেটা প্রত্যেকটি ডিভাইস এর ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয়ে থাকে এবং যোগাযোগ করার ক্ষেত্রে internet Protocol ব্যবহার করে কম্পিউটার নেটওয়ার্ক এর সাথে সংযুক্ত থাকে।

IP address কে সহজে বা সংক্ষেপে বলা হয় IP.  এই সংখ্যার লেভেল গুলো এক ধরনের ইউনিক এড্রেস হিসাবে কাজ করে। যার মাধ্যমে ইন্টারনেট বা লোকাল নেটওয়ার্ক ব্যবহার করে সহজে ডিভাইস গুলোকে খুঁজে বের করা যায়।

আপনি যদি ইন্টারনেট ব্যবহার করেন নিজের মোবাইল বা কম্পিউটারে তাহালে ISP (Internet service provider) দ্বারা আপনাকে একটি আইপি এড্রেস দেওয়া হবে। 

আশাকরি, সহজে বুঝতে পারছেন ইন্টারনেট প্রোটোকল কি

নিজের IP address বের করার নিয়ম?

উপরের কনটেন্ট গুলো পড়ার পরে আপনারা হয়তো বুঝতে পারছেন IP address এর গুরুত্ব সম্পর্কে। তাহালে চলুন এবার নিচে থেকে জেনে আসি নিজের কম্পিউটার বা মোবাইলে কিভাবে IP address বের করবো?

এমনিতে IP address বের করা অনেক সহজ। নেটওয়ার্ক প্রোটোকল এড্রেস জানার জন্য দুইটি উপায় রয়েছে। উপায় দুইটি হলোঃ

  1. Internet Search এর মাধ্যমে
  2. Windows Command Prompt এর মাধ্যমে

১. Internet Search এর মাধ্যমে আইপি এড্রেস বের করার নিয়ম

প্রথমে আপনার মোবাইল বা কম্পিউটার ডিভাইস  থেকে আইপি এড্রেস জানার জন্য যেকোনো একটি ব্রাউজার ওপেন করুন। এবার আপনি Google.com এর সার্চ করুন what me ip লিখে।

এবার গুলল আপনার ব্যবহার করা ইন্টারনেট ডিভাইস থেকে IP address দেখিয়ে দিবে। এই প্রক্রিয়ার মাধ্যমে আপনারা মোবাইল, কম্পিউটার, ল্যাপটপ, ট্যাবে IP address বের করে নিতে পারবেন।

২. Windows Command Prompt এর মাধ্যমে IP address বের করার নিয়ম

Windows Command Prompt এর মাধ্যমে আইপি এড্রেস বের করার জন্য কম্পিউটার থেকে windows logo এর সামনে থাকা search boxCMD টাইপ করে সার্চ করুন।

এবার আপনি command prompt এ একটি আইকন (icon) দেখতে পাবেন। সেই icon এ গিয়ে mouse এ right click করে run as administrator অপশনে ক্লিক করুন।

এবার আপনার কম্পিউটারে command prompt চালু হয়ে যাবে এবং কম্পিউটার কীবোর্ড থেকে টাইপ করুন IPconfig এবং Enter চাপুন। তাহালে, কম্পিউটারের IPV4 এবং IPV6 এড্রেস গুলো দেখতে পাবেন।

অন্য একটি সহজ উপায় IP address বের করার?

Computer বা Mobile থেকে IP address জানার জন্য যেকোনো একটি ব্রউজার ওপেন করুন। এবার গুগলে গিয়ে এই whatisIPaddress.com লিখে সার্চ করুন।

আপনাকে একটি ওয়েবসাইটে নিয়ে যাওয়া হবে এবং সেখানে আপনাকে আইপি এড্রেসের সম্পর্কে বিস্তরিত তথ্যা দিয়ে দিবে। যেমন-

  • আপনার IP address দেখিয়ে দিবে।
  • IPS – কোন কোম্পনির ইন্টারনেট ব্যবহার করছেন।
  • Region – কোন জায়গায় আপনার ডিভাইসটি রয়েছে।
  • Country – আইপি এড্রেসটি কোন দেশে রয়েছে।

উপরের এই বিস্তরিত তথ্যা গুলো আপনারা দেখার জন্য আপনারা whatismyipaddress.com এই এড্রেস লিখে সার্চ করুন।

IP address এর ভার্সন (Version)

ইন্টারনেট প্রোটোকল এর বিভিন্ন সংস্করণ এর বিষয়ে আপনাদের সাথে বলবো। IP address এর মূলত দুইটি (২) ভার্সন (version) রয়েছে। যেমন-

  1. IPV4 version
  2. IPV6 version

১. IPV4 version

১৯৮৩ সালে IPV এর চতুর্থ ভার্সন IPV4 প্রথম বারের মতো বিকশিত করা হয়েছিলো। এই ভার্সন ব্যবহার করে নেটওয়ার্ক এ সক্রিয় থাকা ডিভাইস গুলোকে খুঁজে বের করা হয়।

কিছু কিছু addressing system ব্যবহারের মাধ্যমে এই IPV4 গুলো কাজ করে। IPV4 হলো ৩২ বিট বাইনারি নম্বর। এটা দেখতে 168.27.675.1 মতো। এই ভার্সনে কেবল মাত্র সিমিত পরিমানে আইপি এড্রেস থাকে।

২. IPV6 version

ইন্টারনেট প্রোটোকল এর আধুনিক নতুন ভার্সন হলো IPV6. এই ভার্সন এ অসংখ্যা IP address তৈরি হতে পারে। এই IPV6 হলো ১২৮ বিট আইপি এড্রেস। ১৯৯৫ সালে এই IPV6 version টি উপস্থাপিত করা হয়েছিলো।

এই IPV6 version গুলো দেখতে 2687:6758:65f:7575:093j:v9fe:8hj9:95gh. আশাকরি, সহজে বুঝতে পারছেন IP address এর বিভিন্ন ভার্সন গুলোর সম্পর্কে।

ইন্টারনেট প্রোটোকল (IP) কত প্রকার?

ইন্টারনেট প্রোটোকল বা IP address মূলত দুই (২) প্রকার। যেমন-

  1. Private IP address
  2. Public IP address

১. Private IP address

লোকাল নেটওয়ার্ক এর অস্তর্গত বিভিন্ন ডিভাইস গুলো একাত্রে সংযুক্ত হওয়ার ক্ষেত্রে Private IP address ব্যবহার করা হয়। নিজের ব্যাক্তি গত হোম নেটওয়ার্ক বা বিসনেস নেটওয়ার্ক এর সাথে সংযুক্ত থাকা ডিভাইস এর আইপি এড্রেসটি হলো Private IP address.

আপনি যখন নিজের অধিক ডিভাইস গুলো WiFi network এর সাথে সংযুক্ত করা হয়, তখন সেই ডিভাইস গুলোর মধ্যে একটি network address তৈরি হয়। এই নেটওয়ার্ক এড্রেসকে বলা হয় Private IP address.

২. Public IP address

প্রতিটা ইউজারের ক্ষেত্রে Public IP address আলদা আলদা থাকে। এই ধরনের আইপি এড্রেস গুলো IPS দ্বারা আপনাকে প্রদান করা হয়ে থাকে। আপনার যদি হোম নেটওয়ার্ক বা বিসনেস নেটওয়ার্ক থাকে,

তাহালে সেগুলোর ক্ষেত্রেও মূখ্য রুপে এই Private address ব্যবহার করা হয় Internet network ব্যবহার করার ক্ষেত্রে। আশাকরি, সহজে বুঝতে ইন্টারনেট প্রোটোকল বা নেটওয়ার্ক প্রোটোকল এর বিভিন্ন বিষয় সম্পর্কে। 

IP address এর কাজ কি?

ইন্টারনেট প্রোটোকল এড্রেস বা IP address এর কাজ হলো, আপনার কম্পিউটার ডিভাইসকে একটি কম্পিউটার নেটওয়ার্কে সক্রিয় বিভিন্ন অন্যান্য কম্পিউটার ডিভাইস গুলোর মধ্যে সংযুক্ত হতে সাহায্য করে।

মনে করুন, আপনি ইন্টারনেট ব্যবহার করছেন। এবার, যেকোনো একটি ওয়েবসাইটে যাওয়া মানে সেই ওয়েবসাইটের ডাটা, ফাইল গুলোকে এক্সেস করে ইন্টারনেট নেটওয়ার্কের মাধ্যমে ওয়েবসাইটের সার্ভার কম্পিউটারের সাথে সংযুক্ত হয়।

এখানে, আপনার লোকাল কম্পিউটার ডিভাইসকে  একটি কমন নেটওয়ার্ক এর মাধ্যমে অন্যান্য কম্পিউটার ডিভাইস গুলোর সাথে সংযুক্ত করতে সাহায্য করে এই IP address টি।

আইপি এড্রেস এর মাধ্যমে কমন নেটওয়ার্ক এ সক্রিয় থাকা একটি কম্পিউটার ডিভাইস আর একটি কম্পিউটার ডিভাইসকে খুঁজে পেতে সাহায্য করে। তাছাড়া, যেকোনো কম্পিউটার বা মোবাইল ডিভাইসকে ইন্টারনেটের মাধ্যমে খুঁজে বের করা হয় এই IP address এর মাধ্যমে।

আজকে আমরা কি শিখলাম

তাহালে, বন্ধুরা আজকে আমরা জানলাম IP address কি (what is ip address) আইপি এড্রেস বের করার নিয়ম সহ আরো বিস্তরিত বিষয়ে। এই আর্টিকেলটি কেমন লাগলো সেটা অবশ্যই কমেন্টে জানাবেন? এবং ভালো লাগলে শেয়ার করবেন।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে