আউটসোসিং কি? Outsourcing থেকে কিভাবে ইনকাম করবেন?

0
141
আউটসোসিং কি? Outsourcing থেকে কিভাবে ইনকাম করবেন?
আউটসোসিং কি? Outsourcing থেকে কিভাবে ইনকাম করবেন?
ইন্টারনেট থেকে টাকা আয় করার এমনিতে অনেক উপায় বা মাধ্যম ইতিমধ্য আপনাদের সাথে শেয়ার করেছি। আর এই সবটায় কিন্ত লাভজনক বলে প্রমাণিত হয়েছে। আজকে আমি আপনাদের বলবো আউটসোসিং (Outsourcing) বিষয়ে।
আউটসোসিং কাজকে শুধুমাএ অনলাইনের কাজ বলা যাবে না। যদিও অনলাইনে এই কাজের চাহিদা প্রচুর পরিমানে, তবে অফলাইন মার্কেটপ্লেস গুলোও কিন্ত প্রচুরসংখ্যক কাজ পাওয়া যায়। এক কথায় অনলাইন বলুন আর অফলাইন বলুন দুই ক্ষেএে কিন্ত আউটসোসিং এর চাহিদা প্রচুর পরিমানে।
এমনিতে শিক্ষা গ্রহন করার পরে আমাদের দুইটা চয়েস করতে হয়। কেউ হয়তো ব্যবসা নিয়ে কাজ করে আবার কেউ হয়তো চাকরি করা সিদ্ধত নেই। কিন্ত আপনি চাকরি এবং ব্যবসা ছাড়া নতুন একটি ক্যারিয়ার চেছে নিতে পারবেন। আর সেটা হলো আউটসোসিং ক্যারিয়ার। আপনি যদি ভালো আউটসোসিং ক্যারিয়ার তৈরি করতে পারেন তাহালে প্রচুর টাকা আয় করতে পারবেন।
এবার, আপনি যদি ভালো চাকরি বা ব্যবসা করতে না পারেন তাহালে আজই শুরু করুন Outsourcing. তবে, আপনার মধ্যে দক্ষতা থাকতে হবে। সহজ ভাবে বলতে গেলে আউটসোসিং করতে গেলে আপনার মধ্যে বিশেষ দক্ষতা থাকতে হবে। আর সেটা অন্যদের কাছে বিক্রয় করতে পারবেন এবং কাজের মিনিময়ে আপনাকে টাকা দিবে।
আউটসোসিং কি? (what is Outsourcing in bangla tutorial)
আউটসোসিং মানে হলো এমন একটি প্রক্রিয়া যেখানে একজন ব্যাক্তি বা কোম্পানি তার নিদিষ্ট কাজ করানোর জন্য অন্যান্য কোনো ব্যাক্তি বা কোম্পানির সাথে চুক্তি করে। Outsourcing শব্দটি আনা হয়েছে outside resourcing বাক্য থেকে।
এখানে, outside মানে বাহিরে + sourcing মানে উৎস = Outsourcing = বাহিরের আয়ের উৎস।
মানে একটি কোম্পানি বাহিরের যত গুলো উৎস ব্যবহার করে কাজ করানো হয় তাকে বলা হয় আউটসোসিং।
সহজ উদাহরণ,
আমার একটি ওয়েবসাইট আছে, যেখানে আমি প্রতিদিন আর্টিকেল পাবলিম করি। এবার আসল কথা হলো এই আর্টাকেল গুলো আমি নিজে লিখি না। কারণ আমার সময়ের অভাব। যে কারণে ওয়েবসাইটের জন্য আর্টিকেল লেখার সময় নেই। তাহালে, এখন আমি কি করবো?
আমি ইন্টারনেট থেকে কিছু ভালো রাইটারের সাথে চুক্তি করবো। তারা আমার website এর জন্য আর্টিকেল লিখছে। কিন্ত আমার ব্লগের ভিজিটররা কখনো জানেনা। তারা মনে করে ব্লগের সকল আর্টিকেল গুলো আমার নিজের লেখা। কিন্ত সময়ের অভাবে ব্লগের আর্টিকেল গুলো আমি অন্য কারও থেকে লিখে নিচ্ছি।
কিছু টাকার বিনিময়ে আমার কাজটা অনেক সহজ হয়ে যাচ্ছে এতে আমার সময় নষ্ট হচ্ছে না।এখানে আমি যেহেতু কোম্পানির বাহিরে থেকে উৎস সাধন করছি তাই আমার এই প্রক্রিয়াকে বলা হবে আউটসোসিং (outsourcing) করা। যারা এই চুক্তির সাথে কাজ করে তাদেরকে বলে ফ্রিল্যান্সার (freelancer). আর তারা ফ্রিল্যান্সার হিসাবে আউটসোসিং করে এর মাধ্যমে টাকা আয় করছে।
কিভাবে আউটসোসিং থেকে ইনকাম করবেন?
প্রথমে নিজেকে যেকোনো বিষয়ে পারফেক্ট হিসাবে তৈরি করতে হবে। সেটা হতে পারে web design, graphic design, SEO, digital marketing ইত্যাদি। এই সব কাজ গুলোর বর্তমানে প্রচুর চাহিদা রয়েছে।
আউটসোসিং সাইট গুলোতে নিজের জন্য একটা একাউন্ট তৈরি করতে হবে। যেমন- আপনি Freelancer.com, Upwork.com, frverr.com, guru.com সাইট গুলোতে গিয়ে account তৈরি করতে পারবেন।
একাউন্ট তৈরি করার পরে নিজের জন্য একটা সুন্দর পোর্টফোলিও ওয়েবসাইট তৈরি করতে হবে। সেখানে আপনার কাজের দক্ষতা বিস্তারিত ভাবে লিখতে হবে। যাবে বায়ার্নরা সহজে বুঝতে পারে যে আপনি কাজ পারেন।
 
আউটসোসিং ওয়েবসাইটে গিয়ে আপনি নানা ধরনের কাজ দেখতে পাবেন। যার মধ্যে আপনি যে বিষয়ে দক্ষ আছেন সেই কাজ গুলো করে টাকা আয় করুন।
আপনি যত ভালো কাজ করবেন এবং সময়মত কাজ করতে পারবেন ততো, আপনার চাহিদা বৃদ্ধি পাবে।
আশাকরি, আউটসোসিং কি? কিভাবে outsourcing থেকে আয় করবেন সে বিষয়ে সহজে বুঝতে পারছেন। আর প্রশ্ন থাকলে কমেন্টে বলুন।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে