ইন্সুরেন্স কাকে বলে ? লাইফ ইন্সুরেন্স এর সুবিধা

আজকে আমরা জানবো ইন্সুরেন্স কাকে বলে বা ইন্সুরেন্স কি এবং লাইফ ইন্সুরেন্স এর সুবিধা গুলোর ব্যাপারে। আপনারা যারা বীমা বা ইন্সুরেন্স সম্পর্কে জানতে চান আজকের আর্টিকেলটি তাদের জন্য।

বীমা বা ইন্সুরেন্স কথাটি আমরা অনেক আগে থেকে শুনেছি কিন্ত এই বিষয় নিয়ে আমাদের মনে নানা ধরনের প্রশ্ন রয়েছে।

কারণ, ইন্সুরেন্স আমাদের জীবনে একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। তাই এই সম্পর্কে জানার ইচ্ছা থাকাটা স্বাভাবিক।

বিশ্বের অন্যান্য দেশের সাথে তাল মিলিয়ে বাংলাদেশ ও ব্যবসা-বাণিজ্যের প্রসার ঘটছে। এর সাথে প্রসার ঘটছে ইন্সুরেন্স বা বীমার।

মনে রাখবেন, বীমা এবং ইন্সুরেন্স একই জিনিস। বাংলাতে বীমা বলা হয়, আর ইংরেজিতে বলা হয় ইন্সুরেন্স।

বীমা ব্যবসার প্রসার ঘটার মূল কারণ হলো প্রকৃতিক দুর্যোগ। প্রত্যেক বছর ঘুর্ণিঝড়, বন্যা ইত্যাদি কারণে ব্যবসায় আঘাত হানে। এই প্রকৃতিক দুর্যোগ গুলো ধংস করছে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান গুলো।

তাহলে চলুন প্রথমে জেনে আসি ইন্সুরেন্স কি বা কাকে বলে।

ইন্সুরেন্স কাকে বলে? (What is insurance)

আগেই বলেছি ইন্সুরেন্স ইংরেজি শব্দ যার বাংলা অর্থ বীমা। আর বীমা মানে চুক্তি। এই চুক্তি কেমন হতে পারে সেই সম্পর্কে আমরা জানবো।

বীমা হলো এমন একটি চুক্তি যা বিপদের সময় আপনার পাশে থাকবে বা আপনার সাহায্য করবে। মনে করেন আপনি ২ লক্ষ টাকার একটি বীমা করছেন ২ বছরের জন্য।

এই বীমা করার সময় আপনাকে চুক্তি করতে হবে এবং নিদিষ্ট সময়ে নিদিষ্ট টাকা প্রিমিয়াম করতে হবে। যাতে আমরা বলে থাকি কিস্তি।

মনে করুন, আপনি ১ বছরের জন্য একটি শস্য বীমা করলেন এবং প্রত্যেক মাসে নিদিষ্ট পরিমানে বীমা ফি জমা দিলে।

উক্ত এক বছর বীমাকালিন সময়ের মধ্যে যদি বন্য বা প্রকৃতিক দুর্যোগ এর কারণে আপনার শস্যের যদি কোনো ক্ষতি হয় তাহলে বীমা কোম্পানি ক্ষতি পূরণ করবে।

আশাকরি এবার হয়তো আপনারা সহজে বুঝতে পারছেন বীমা কি বা ইন্সুরেন্স কি বা ইন্সুরেন্স কাকে বলে।

ইন্সুরেন্স কত প্রকার ও কি কি?

ইন্সুরেন্স বা বীমা অনেক প্রকার হয়ে থাকে। এক্ষেত্রে আপনি বিভিন্ন প্রকারের ইন্সুরেন্স করতে পারেন। তবে, বেশি ভাগ মানুষরা ৮ প্রকারের ইন্সুরেন্স করে থাকে।

এই ৮ প্রকার ইন্সুরেন্স বা ইন্সুরেন্স গুলো হলো –

  • জীবন বীমা (Life Insurance)
  • স্বাস্থ্য বীমা (Health Insurance)
  • সাধারণ বীমা (General Insurance)
  • অগ্নি বীমা (Fire Insurance)
  • ভ্রমন বীমা (Travel Insurance)
  • সম্পত্তি বীমা (Property Insurance)
  • দুর্ঘটনা বীমা (Accidents Insurance)
  • গৃহ বীমা / ঘরের ইন্সুরেন্স (Building Insurance)

যে সব ইন্সুরেন্স বা বীমা আমাদের জীবনের সাথে জড়িত না সেই সব বীমা বা ইন্সুরেন্সকে সাধারণ ইন্সুরেন্স বলা হয়।

তাই বীমা মূলত দুই প্রকার। জীবন বীমা এবং সাধারণ বীমা। জীবন বীমার বাহিরে যত প্রকার বীমা রয়েছে সব সাধারণ বীমা।

(১) জীবন বীমা কি? (What is Life Insurance)

জীবন বীমা বলতে আপনার জীবন সংক্রান্ত বীমা। আপনি যখন কোনো বীমা বা ইন্সুরেন্স করবেন তখন একটি চুক্তিতে আবদ্ধ হবেন।

সেই চুক্তিতে আপনাকে নিশ্চিত করতে হবে আপনি কোন ধরনের বীমা বা ইন্সুরেন্স করতে চাচ্ছেন। আপনি যদি জীবন বীমা করেন তাহলে নিদিষ্ট সময়ের আগে আপনার জীবনে যদি কোনো ক্ষতি হয় তাহলে সম্পর্ন ক্ষতির টাকা ইন্সুরেন্স কোম্পানি প্রদান করবে।

আবার, আপনি যদি নিদিষ্ট সময়ের মধ্যে মারা যান তাহলে ইন্সুরেন্সের সব টাকা আপনার উত্তরাধিকারগণ পেয়ে যাবেন।

(২) সাধারণ বীমা (What is General Insurance)

জীবন বীমা ব্যাতিত সকল বীমাকে বলা হয় সাধারণ বীমা। প্রকৃতিক দুর্যোগ মোকাবেলায় শস্যকে বাঁচাতে যে বীমাপত্রে চুক্তি করা হয় তাকে ও সাধারণ বীমা বলা হয়।

নিচে সাধারণ বীমা সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে।

স্বাস্থ্য বীমা কি?

বর্তমান সময়ে আমরা হঠাৎ করে অসুস্থ হয়ে যায়। মানে মানুষের অসুস্থতার সংখ্যা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। তাই স্বাস্থ্য বীমার চাহিদা বৃদ্ধি পাচ্ছে।

আপনারা হয়তো স্বাস্থ্য বীমা সম্পর্কে ভালো করে জানেন না। স্বাস্থ্য বীমা হলো, আপনি যদি স্বাস্থ্য বীমা কোম্পানির সাথে চুক্তি করে বীমা করে রাখেন এবং তাদের প্রিমিয়াম জমা দেন তাহলে আপনি নিশ্চিত।

আপনার চুক্তি করা সময়ের মধ্যে আপনি যদি অসুস্থ হয়ে যান তাহলে আপনার সমস্ত খরচ বীমা কোম্পানি বহন করবে। এটাই হলো স্বাস্থ্য বীমা।

অগ্নি বীমা কি

মনে করুন আপনার একটি বড় কলকারখানা ফ্যাক্টারি রয়েছে। অনেক সময় নানা দুর্ঘটনার কারণে ফ্যাক্টারিতে আগুন লেগে যায়।

ফ্যাক্টারিতে আগুন লেগে যাওয়া মানে আপনার সম্পর্ন ফ্যাক্টারি পুড়ে ছায় হয়ে যাবে। এক্ষেত্রে আপনার লাখ লাখ টাকা লস হয়ে যাবে এবং আপনি পথের ফকির হয়ে যাবেন।

এখন আপনি যদি নিজের ফ্যাক্টারির নামে একটি অগ্নি বীমা করেন এবং প্রত্যেক মাসে তাদের প্রিমিয়াম জমা দেন তাহলে আপনার ফ্যাক্টারিতে যদি আগুন লাগে তাহলে বীমা কোম্পানি ক্ষতির পরিমান বহন করবে।

আশাকরি অগ্নি বীমা কি এবং কেন করবেন সহজে বুঝতে পারছেন।

ভ্রমন বীমা

ভ্রমন করতে আমরা সবাই পছন্দ করি। তবে, যারা দেশের বাহিরে বিভিন্ন দেশ ভ্রমন করে বেড়াতে পছন্দ করেন তাদের অনেক সময় অপ্রত্যাশিত ভাবে অনেক ক্ষয় ক্ষতি হতে পারে।

এক্ষেত্রে ভ্রমন বীমা সব দেশে ভ্রমন করার সময় যেকোনো ক্ষয় ক্ষতি পূরণ করে থাকে। ভ্রমন বীমা পলিসি গুলো সাধারণ লাগেজ হারানো, চুরি, ট্রিপ বাতিল, মেডিকেল সমস্যা, বিমান হাইজ্যাক এর মতো খরচ কভার করে।

যদিও এই নীতি নিরাপত্তা নিশ্চিত করে না তবে, অনিশ্চিত ঘটনার অপ্রত্যাশিত ক্ষয় ক্ষতির দিক থেকে সুরক্ষা হিসেবে কাজ করে।

বর্তমানে অনেক দেশের পর্যটকদের জন্য ভ্রমন বীমা বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। আপনার বিদেশে ভ্রমনের বেশিভাগ নীতি ২৪ ঘন্টা জরুরি সহায়তা প্রদান করে।

সম্পত্তি বীমা

সম্পত্তি বীমা কোন ব্যাক্তি বা সংস্থা তাদের সম্পত্তিতে মানবসৃষ্ট বা প্রকৃতিক বিপর্যয়ের বিরুদ্ধে ব্যাকআপ করে।

আপনার সম্পত্তি যেমন- বাড়ি, ব্যবসা, কলকারখানা যন্ত্রপাতি, দোকান ইত্যাদিকে আগুন, বন্যা, ভূমিকম্প, চুরি, বিস্ফোরণ এর মতো ঝুকির বিরুদ্ধে সুরক্ষা প্রদান করে।

ভারতে এই সম্পত্তি বীমার অনেক চাহিদা রয়েছে। সম্পত্তি বীমা প্রথম পক্ষের কভার, মানে এটা প্রথম পক্ষ ও দ্বিতীয় পক্ষের মধ্যে একটি চুক্তি।

এথানে প্রথম পক্ষ হলো বীমাকৃত ব্যাক্তি এবং দ্বিতীয় পক্ষ হলো বীমা কোম্পানি। তাদের পলিসি অনুসারে যদি আপনার সম্পত্তির কোনো ক্ষতি হয় তাহলে বীমাকারীকে সম্পদ ফেরত দেওয়া হয়।

দুর্ঘটনা বীমা

আপনার যদি দুর্ঘটনা বীমা পলিসি করা থাকে তাহলে শারীরিক আঘাত, মৃত্যুর ক্ষেত্রে কভার করে। শারিরীক ভাবে ছোট বড় আঘাত পেলে বীমা ইন্সুরেন্স কোম্পানি সম্পর্ন খরচ বহন করবে।

তাছাড়া, আপনার যদি দুর্ঘটনায় মৃত্যু হয় তাহলে বীমা কোম্পানি আপনার পরিবারকে অর্থনৈতিক ভাবে সাহায্য করবে।

একটি দুর্ঘটনা পলিসি কেনার পরামর্শ দেওয়ার প্রধাণ কারণ ছোট বড় আঘাত থেকে মৃত্যু পর্যন্ত সকল ঘটনাকে বীমা বা ইন্সুরেন্স কোম্পানি কভার প্রদান করবে।

তাছাড়া, আপনাদের পরিবারকে আর্থিক ভাবে সুরক্ষা প্রদান করবে। আপনারা চাইলে অনলাইনের মাধ্যমে দুর্ঘটনা বীমা করতে পারেন।

গৃহ বীমা / ঘরের ইন্সুরেন্স

আমাদের মূল্যবান সম্পদ গুলোর মধ্যে বাড়ি একটি। তাই আপনার বাড়ি নিরাপদ ও সুরক্ষিত করার জন্য গৃহ বীমা বা ঘরের ইন্সুরেন্স করতে পারেন।

গৃহ বীমা প্রকৃতিক দুর্যোগ এবং অন্যান্য ক্ষয় ক্ষতির বিরদ্ধে আর্থিক ভাবে সুরক্ষা প্রদান করে। এই গৃহ পলিসি মানবসৃষ্ট এবং প্রকৃতিক দুর্যোগ উভয় ক্ষতি কভার করে।

ঘরের ইন্সুরেন্স হলো ঘরের মালিক এবং ইন্সুরেন্স কোম্পানির মধ্যে একটি চুক্তি। ইন্সুরেন্স কোম্পানি মূলত নিদিষ্ট অর্থ প্রদান করার পরামর্শ দেয় অপ্রত্যাশিত ক্ষতির বিরদ্ধে।

মানবসৃষ্ট এবং প্রকৃতিক দুর্যোগের কারণে পলিসির মধ্যে কোনো ক্ষতি হলে বীমা কোম্পানি ক্ষতি পূরণ দিবে। এক্ষেত্রে আপনার বাড়ি সুরক্ষিত থাকার কারণে আপনি চাপ মুক্ত থাকতে পারবেন।

লাইফ ইন্সুরেন্স এর সুবিধা

লাইফ ইন্সুরেন্স করার অন্যতম সুবিধা হলো আপনি জরুরি অবস্থায় বিশেষ সাহায্য পেয়ে যাবেন। যার ফলে অপ্রত্যাশিত কোনো ঘটনার জন্য আপনি আগে থেকে প্রস্তুত থাকতে পারবেন।

লাইফ ইন্সুরেন্স এর বিশেষ কিছু উল্লেখযোগ্য সুবিধা হলো –

  • মৃত্যু পরবর্তী আপনার পরিবার আর্থিক ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা পাবে।
  • শুধু আর্থিক সহযোগিতা পাবেন না বীমা কোম্পানির কাছ থেকে একই সাথে বিনিয়োগ সমস্ত টাকা ফেরত পবােন।
  • জরুরি অবস্থায় আপনার যদি টাকার প্রয়োজন হয় তাহলে বীমা কোম্পানির কাছ থেকে ঋণ গ্রহণ করতে পারবেন।
  • লাইফ ইন্সুরেন্স এর সুবিধা গুলোর মধ্যে অন্যতম একটি সুবিধা হলো আপনার পরিবারের আর্থিক ভাবে নিরাপত্তা প্রদান করে।

শেষ কথা

আজকের আলোচনা থেকে আমরা জানলাম ইন্সুরেন্স কাকে বলে, ইন্সুরেন্স কত প্রকার এবং লাইফ ইন্সুরেন্স এর সুবিধা গুলোর সম্পর্কে।

আশাকরি, ইন্সুরেন্স কি বা কাকে বলে এই সম্পর্কে আপনারা সহজে বুঝতে পারছেন। এছাড়াও যদি কোনো প্রশ্ন বা পরামর্শ থাকে কমেন্টে জানাবেন এবং ভালো লাগলে শেয়ার করবেন।

2 thoughts on “ইন্সুরেন্স কাকে বলে ? লাইফ ইন্সুরেন্স এর সুবিধা”

  1. যেকোনো সময় চুক্তি বাতিল করা যাবে?? কিংবা চুক্তি বাতিল করলে আমার বিনিয়োগ ফেরত পাব?? অথবা চুক্তির সময় সিমার মধ্যে কোম্পানির আমাকে কোন ধরনের হেল্প করতে না হইলে চুক্তির সময় শেষ হওয়ার পর আমার বিনিয়োগ ফেরত দেবে কী???

    Reply

Leave a Comment

Share via
Copy link
Powered by Social Snap