কেন একটি পুরোনো ডোমেইন (Expired Domain) কিনবেন

2
171
কেন একটি পুরোনো ডোমেইন (Expired Domain) কিনবেন
কেন একটি পুরোনো ডোমেইন (Expired Domain) কিনবেন

আজকের এই আর্টিকেলে বলবো কেন একটি নতুন ডোমেইনের তুলনায় পুরাতন ডোমেইন কেনা লাভজনক। আরো বলবো (Expired Domain) কি? আপনি যখন একটি ওয়েবসাইট তৈরি করে টাকা ইনকামের কথা চিন্তা করবেন তখন প্রথমে প্রয়োজন হবে নিজের ওয়েবসাইটের জন্য একটি ডোমেইন নাম (domain name) সিলেক্ট করা। (ডোমেইন এর কাজ কি)

তবে, ওয়েবসাইটের জন্য ডোমেইন নাম সিলেক্ট করার জন্য আপনি দুইটা অপশন পাবেন। (এক্সপায়ার্ড ডোমেইন কেনা কেন লাভ জনক)

(১) একটি নতুন ডোমেইন সিলেক্ট করা বা কেনা। (আমরা সবাই নতুন ডোমেইন কিনে থাকি)

(২) একটি (Expired Domain) পুরোনো ডোমেইন সিলেক্ট করা বা কেনা। (অনেকে মনে হয় এই বিষয়ে জানে না)

আপনাকে মনে রাখতে হবে এক্সপায়ার্ড ডোমেইন কিন্ত নতুন ডোমেইন থেকে সম্পর্ন আলদা। আর ব্লগিং করার দিক থেকে একটি পুরাতন ডোমেইন কেনা কিন্ত অনেক লাভজনক। কারণ আপনি এই ডোমেইনে আর্টিকেল পাবলিশ করে অনেক দ্রুত সময়ে গুগল সার্চে রেংক করিয়ে নিতে পারবেন। কিভাবে সেই কৌশলটা চলুন আমরা জেনে আসি। তার আগে আপনাকে জানতে হবে এক্সপায়ার্ড ডোমেইন কি?

এক্সপায়ার্ড ডোমেইন কাকে বলে?

একটি এক্সপায়ার্ড ডোমেইন হলো যে ডোমেইন আগে অন্যান্য ব্যাক্তিরা কিনে ব্যবহার করেছে। অন্য ব্যাক্তিদের কেনা সেই domain expired হয়ে যায়, তখন মালিক আর ঔ ডোমেইনটা renew করে না। তখন সেটা এক্সপায়ার্ড হয়ে যায়। আর এই ধরনের ডোমেইনকে বলা হয় এক্সপায়ার্ড ডোমেইন। (ডোমেইন এর গুরুত্ব)

কেন এক্সপায়ার্ড পুরোনো ডোমেইন ব্যবহার করব?

ওয়েবসাইট SEO এর জন্য পুরোনো ডোমেইন খুব লাভজনক বলে প্রমাণিত হয়েছে। কারণ, এক্সপায়ার্ড হওয়া ডোমেইনটি আগে গুগলে ব্যবহার হয়েছে। তাই এই ধরনের ডোমেইনে কিছু হলে ও ডোমেইন অথরিটি (domain authority) বা DA থাকে। কেননা এই ডোমেইন গুলো ১ থেকে ৫ বছরের পুরাতন থাকে। আর গুগলে এই ধরনের পুরাতন ডোমেইনে দ্রুত আর্টিকেল গুলো রেংক (rank) করায়। মনে রাখবেন, ডোমেইন নাম যত পুরোনো হবে ততো DA বৃদ্ধি পেতে থাকবে।

এক্সপায়ার্ড ডোমেইনে কি কি থাকবে?

  • পুরোনো ডোমেইনের বয়স থাকে। মানে domain পুরোনো থাকে।
  • ডোমেইন অথরিটি থাকে যেটা আমরা দেখে কিনেছি। কমপক্ষে ৫ থেকে ২০ এর মধ্যে DA থাকবে।
  • ডোমেইনে আগে থেকে কিছু সংখ্যক ব্যাকলিংক (backlinks) থাকবে।
  • নতুন ডোমেইনে কি কি থাকে?
  • যেহেতু ডোমেইনটা নতুন সেহেতু কোনো বয়স থাকবে না।
  • ডোমেইনের অথরিটি 0 থাকবে।
  • কোনো ব্যাকলিংক (Backlinks) থাকবে না।

নতুন ডোমেইন এবং পুরোনো ডোমেইন এর মধ্যে পার্থক্য গুলো কি কি?

(১) নতুন ডোমেইনে domain authority 0 থাকবে। কিন্ত পুরোনো ডোমেইন এ domain authority আপনি চেক করে কিনবেন। মানে আপনি যেমন নির্বচন করবেন।

(২) New Domain গুগলের নজরে আসে খুবই কম কিন্ত এক্সপায়ার্ড ডোমেইন গুগলের নজরে নির্বচনে থাকে।

(৩) নতুন ডোমেইন এ আর্টিকেল গুগলে ইনডেক্স (index) হতে দুই থেকে তিন মাস সময় লাগে কিন্ত পুরোনো ডোমেইন এ প্রথম দিন থেকে আর্টিকেল বা কন্টেন্ট ইনডেক্স হয়ে যায়।

(৪) নতুন ডোমেইনে ব্যাকলিংক থাকে না। আপনাকে তৈরি করতে হয় কিন্ত এক্সপায়ার্ড ডোমেইনে ব্যাকলিংক বানানো থাকে।

(৫) নতুন ডোমেইন স্প্যাম থাকে না কিন্ত এক্সপায়ার্ড ডোমেইন স্প্যাম কতটা রয়েছে সেটা যাচাই করে দিতে হবে।

পুরোনো ডোমেইন (Expired Domain) কেনার আগে কি কি দেখতে হবে?

আপনি যখন চিন্তা করবেন একটি Expired Domain ক্রয় করবেন তখন আপনাকে চারটি বিষয়ে জেনে নিতে হবে। তাহালে আপনি লাভোবান হতে পারবেন।

(১) Domain Link Profile Check

এক্সপায়ার্ড ডোমেইন কেনার আগে আপনি অবশ্যই link profile বা backlinks চেক করে নিবেন। যদি spam score ২০% এর বেশি থাকে তাহালে কখনো কিনবেন না। আপনি websiteseochecker.com ওয়েবসাইটের মাধ্যমে স্প্যাম স্কোর চেক করে নিতে পারবেন।

(২) Domain Authority (DA) Check

আপনি যখন টাকা দিয়ে একটি ডোমেইন কিনবেন তখন আপনার DA স্কোর যেন ৫ থেকে ২০ এর মধ্যে হয়। যদি এর মধ্যে থাকে তাহালে আপনি লাভোবান হবেন। ডোমেইন অথরিটি চেক করার জন্য আপনি এই লিংকে যান https://websiteseochecker.com/domain-authority-checker/

(৩) Check Domain History

যেহেতু আমরা একটি পুরোনো ডোমেইন কিনবো সেহেতু ডোমেইনটা আগে কি ধরনের ওয়েবসাইটে ব্যবহার করা হয়েছে সেটা দেখা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কারণ আপনি যে ক্যাটাগরির ওয়েবসাইট বানাতে চান সেই ক্যাটাগরির হলে ভালো হয়। মনে করুন, আপনি Freelancing নিয়ে একটি ওয়েবসাইট তৈরি করতে চাচ্ছেন এখন আপনি যে ডোমেইনটা কিনেছেন সেটা আগে যদি shipping website এ যুক্ত থাকে তাহালে কিন্ত ডোমেইনটা সিলেক্ট করা আপনার জন্য সঠিক হলো না।

আপনি যেকোনো domain history চেক করার জন্য এই https://archive.org/ গিয়ে চেক করতে পারবেন।

(৪) Google URL Banned Check

অনেক সময় অনেক ডোমেইন এ গুগল থেকে website URL banned করে দেয়। মানে গুগল সার্চ ব্লক করে দেয়। এখন আপনি যদি এমন ডোমেইন কিনে ফেলেন তাহালে গুগল সার্চে আপনার সাইটের টফিক গুলো দেখাবে না এবং আপনি রেংক এং ট্রাফিক পাবেন না। ওয়েবসাইটটি গুগল ব্যান্ড করেছে কিনা সেটা চেক করার জন্য এই https://transparencyreport.google.com/safe-browsing গিয়ে সার্চে ডোমেইন নাম লিখে সার্চ দিন।

(৫) Google AdSense Banned Check

আপনার ক্রয় করা ওয়েবসাইটটি গুগল এডসেন্স থেকে ব্যান্ড করে দিয়েছে কিনা সেটা চেক করে কিনতে হবে। অনেক ওয়েবসাইটে পলিসির কারণে google AdSense named করে দেয়। যদি এমন হয় তাহালে গুগল এডসেন্স থেকে আপনি ইনকাম করতে পারবেন না। ডোমেইনটা গুগল এডসেন্স থেকে ব্যান্ড রয়েছে কিনা সেটা চেক করার জন্য এই লিংকে http://stratage.ms/en/adsensebanned/ যান। সার্চ করার পরে যদি No দেখায় তাহালে মনে করবেন ব্যান্ড হয়নি।

Expired Domain কিভাবে কিনব?

Expired Domain কেনার আলদা platform রয়েছে। আপনি যদি পুরোনো ডোমেইন কেনার সেরা প্লাটফর্ম খুঁজছেন তাহালে এই https://www.expireddomains.net/ সাইটটি আপনার জন্য সেরা। এখানে নিজের পছন্দমত domain name লিখে সার্চ করবেন। এখানে প্রতিটা ডোমেইনের বয়স, ব্যাকলিংক সহ আরো বিভিন্ন বিষয়ে দেখতে পাবেন।

আর ডোমেইনটা কত টাকা দিয়ে কিনতে হবে সেটা Status এর মধ্যে গিয়ে দেখতে পারবেন।  domain name যদি available থাকে তাহালে যেকোনো ডোমেইন কেনার ওয়েবসাইট থেকে normal rates এ কিনে নিতে পারবেন। পুরোনো ডোমেইন এর জন্য অধিক টাকা দেওয়া লাগবে না।

আজকে আমরা কি শিখলাম

তাহালে আজকে আমরা শিখলাম Expired Domain কি? এবং এক্সপায়ার্ড ডোমেইন এবং নতুন ডোমেইন এর মধ্যে পার্থক্য কি? এবং এক্সপায়ার্ড ডোমেইন কিভাবে কেনা যায়। বন্ধুরা আমার আর্টিকেলটি যদি আপনার কাছে ভালো লাগে তাহালে শেয়ার করতে ভুলবেন না। ব্লগিং সম্পর্কে নতুন নতুন তথ্য পেতে আমাদের ওয়েবসাইটটি ভিজিট করুন।

2 মন্তব্য

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে