বিকাশ একাউন্ট খোলার নিয়ম

0
154
বিকাশ একাউন্ট খোলার নিয়ম
বিকাশ একাউন্ট খোলার নিয়ম

বিকাশ একাউন্ট খোলার নিয়ম – বন্ধুরা আজকের এই আর্টিকেলটি পড়ার পরে আপনারা খুব সহজে ঘরে বসে বিকাশ একাউন্ট খুলতে পারবেন। বিকাশ একাউন্ট খোলার পরে লেনদেন করলে পাবেন ১৫০ টাকা বোনাস। 

Bkash account খোলার আগে চলুন আমরা জেনে আসি বিকাশ কি এর ব্যাপারে।

বিকাশ কি?

বিকাশ হলো আমাদের বাংলাদেশের একটি মোবাইল ব্যাংকিং সেবা। যার মাধ্যমে আমরা সহজে টাকা আদান প্রদান করতে পারি। ২০১১ সাল থেকে বাংলাদেশ ব্যাংক নিয়ন্ত্রণ পেমেন্ট সেবা হিসাবে কাজ করে আসতেছে।

মূলত বিকাশ ব্র্যাক ব্যাংক, যুক্তরাষ্ট্র ভিত্তিক মানি ইন মোশন সহ আরো কয়েকটি যৌথ মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠান। বিকাশ অ্যাপ এর মাধ্যমে গ্রহকগণ সহজে এক একাউন্ট থেকে অন্য একাউন্টে টাকা পাঠাতে এবং গ্রহন করতে পারবেন।

এছাড়াও বিকাশ দ্বারা বিদ্যুৎ বিল, পানির বিল, গ্যাস বিল, অনলাইনে কেনাকাটা করে পেমেন্ট, মোবাইল রিচার্জ, ডেবিট কার্ড ও ক্রেডিট বিল প্রদান করতে পারবেন। আরো পাবেন আকর্ষনীয় সব অফার বা বোনাস।

আশাকরি, আপনারা সহজে বুঝতে পারছেন বিকাশ কি (what is bkash in bangla).

বিকাশ একাউন্ট খুলতে কি কি লাগে 

মনে রাখবেন, বিকাশ একাউন্ট খোলা একদম সিম্পল। কিভাবে বিকাশ একাউন্ট খুলবো এই সম্পর্কে জানতে এই সম্পর্ন আর্টিকেল মনোযোগ দিয়ে শেষ পর্যন্ত পডুন।

আমি প্রথমে বলেছি আপনি বাড়িতে বসে বিকাশ অ্যাপের মাধ্যমে বিকাশ একাউন্ট খুলতে পারবেন। এর জন্য আপনার যা যা প্রয়োজন হবে,

  • একটি এক্টিভেট মোবাইল নাম্বার। 
  • আপনার জাতীয় পরিচয়পত্র / NID, (জাতীয় পরিচয়পত্রের অনলাইন কপি দিয়েও খুলতে পারবেন)।
  • একটি এন্ড্রয়েড স্মার্টফোন এবং সাথে ইন্টারনেট সংযোগ। 
  • যে ব্যাক্তির NID Card দিয়ে একাউন্ট খুলবেন তাকে অবশ্যই সাথে রাখতে হবে, কারণ তার সেলফি আপলোড করে ভেরিফাই করতে হবে শেষে।

বিকাশ একাউন্ট খোলার নিয়ম

মোবাইলে বিকাশ অ্যাপ দিয়ে একটি পার্সোনাল একাউন্ট খোলা খুব সহজ। এর জন্য নিচের ধাপ গুলো অনুসরণ করুন এবং ১৫০ টাকা বোনাস নিন।

প্রথমে নিজের মোবাইলে বিকাশ অ্যাপটি ডাউনলোড করুন। আপনারা এই বিকাশ অ্যাপ ডাউনলোড লিংক থেকে app download করে লেনদেন করলে ১৫০ টাকা বোনাস পাবেন। বিকাশ এপস ইনস্টল করুন। এছাড়া google play store থেকে ও bkash app download করে নিতে পারেন।

ধাপ – ১

বিকাশ একাউন্ট লগ ইন / রেজিষ্ট্রেশন করুন
বিকাশ একাউন্ট লগ ইন / রেজিষ্ট্রেশন করুন

বিকাশ ডাউনলোড করে ইনস্টাল করে ওপেন করুন। এবার উপরের ছবির মতো একটি ইন্টারফেস দেখতে পাবেন। সেখান থেকে লগ ইন / রেজিষ্ট্রেশন অপশনে ক্লিক করুন।

ধাপ – ২

বিকাশ মোবাইল নাম্বার দিন
বিকাশ মোবাইল নাম্বার দিন

লগ ইন / রেজিষ্ট্রেশন অপশনে ক্লিক করার পরের পেজে আপনাকে বলা হবে যে মোবাইল নাম্বারে বিকাশ খুলতে চান সেই নাম্বার টাইপ করার জন্য। নাম্বার দিয়ে “পরবর্তী” অপশনে ক্লিক করুন।

ধাপ – ৩

বিকাশ ভেরিফিকেশন কোড দিন
বিকাশ ভেরিফিকেশন কোড দিন

এবার আপনাকে বলা হবে আপনি যে মোবাইল নাম্বার দিয়েছেন সেই মোবাইল আপারেটর সিলেক্ট করার জন্য করার জন্য। এটা সিলেক্ট করার পরে আপনার মোবাইলে একটি ভেরিফিকেশন কোড চলে আসবে।

বিকাশ কোড নাম্বার বসান
বিকাশ কোড নাম্বার বসান

এই কোড অটোমেটিক আপনার অ্যাপে সেট হয়ে যাবে। এবার “কনফার্ম” অপশনে ক্লিক করুন। মনে রাখবেন এই কোড নাম্বার কারও সাথে শেয়ার করবেন না।

ধাপ – ৪

এবার আপনি নিয়ম ও শর্তসমূহ পড়ে “আমার সম্মতি আছে” এই অপশনে ক্লিক করুন।

ধাপ – ৫

NID Card এর সামনের ছবি এবং পিছনের ছবি তুলতে হবে
NID Card এর সামনের ছবি এবং পিছনের ছবি তুলতে হবে

এবার আপনাকে NID এর তথ্য গুলো প্রদান করার জন্য NID Card এর সামনের ছবি এবং পিছনের ছবি পরিস্কার ভাবে তুলে সাবমিট করতে হবে। এই ছবি নিদিষ্ট ফ্রের্মের মধ্যে তুলতে হবে।

ধাপ – ৬

তথ্য গুলো যাচাই করুন
তথ্য গুলো যাচাই করুন

পরের ধাপে আপনার NID কার্ডের সকল তথ্য গুলো সঠিক আছে কিনা সেটার যাচাই করুন এবং এর সাথে প্রয়োজনীয় অপশন গুলো যথাক্রমে পূর্ণ করুন। সব কিছু সঠিক থাকলে “পরবর্তী” অপশনে ক্লিক করুন।

ধাপ – ৭

সেলফি তুলুন
সেলফি তুলুন

এবার আপনাকে একটি সেলফি তুলে নিজের বিকাশ একাউন্ট ভেরিফিকেশন করার জন্য বলা হবে। উপরের ছবিতে ছবি তোলার নিয়ম গুলো বলা হয়েছে। ছবি উঠার পরে “নিশ্চিত করুন” অপশনে ক্লিক করুন।

ধাপ – ৮

সব কিছু সঠিক ভাবে সম্পর্ন করার পরে বিকাশ আপনার তথ্য গুলো যাচাই করতে ৪৮ ঘন্টার মতো সময় নিতে পারে। এবং আপনাকে কনফার্ম এসএমএস এর জন্য অপেক্ষা করতে হবে।

আপনাকে কনফার্ম এসএমএস এর জন্য অপেক্ষা করুন
আপনাকে কনফার্ম এসএমএস এর জন্য অপেক্ষা করুন

কনফার্ম এসএমএস পাবার পরে লগ ইন / রেজিষ্ট্রেশন অপশনে ট্যাপ করুন। আপনার বিকাশ একাউন্ট খোলা সম্পর্ন হয়েছে। এবার পিন সেট করতে হবে।

কিভাবে বিকাশ পিন সেট করবেন

অ্যাপ থেকে বিকাশ একাউন্ট খোলার পরে আপনাকে ৫ ডিজিটের পিন সেট করতে হবে। বিকাশ পিন সেট করতে নিচের পদ্ধতি গুলো অনুসরণ করুন।

  • প্রথমে *২৪৭# ডায়াল করুন।
  • মোবাইল থেকে এক্টিভেট মেন্যু বেছে নিন।
  • এবার বিকাশ একাউন্টের জন্য ৫ ডিজিটের পিন বসান।
  • কনফার্ম করার জন্য একই পিন আবার বসান।
  • পিন সেট করা সম্পর্ন হয়ে গেছে, এই গোপন পিন নাম্বার কারও সাথে শেয়ার করবেন না।

সকল প্রক্রিয়া গুলো সঠিক ভাবে সম্পর্ন করার পরে আপনার মোবাইল নাম্বারটি একটি বিকাশ নাম্বার হিসাবে গণ্য হবে। এর পর থেকে আপনার নতুন বিকাশ একাউন্ট দ্বারা প্রথামিক ভাবে ক্যাশইন, মোবাইল রিচার্জ, টাকা গ্রহন সেবা গ্রহণ গুলো ব্যবহার করতে পারবেন।

তবে, ৪ থেকে ৫ দিনের মধ্যে আপনার KYC ফরমের তথ্য আপডেট হয়ে গেলে ক্যাশ আউট, মোবাইল রিচার্জ, ক্যাশইন, পেমেন্ট সহ সকল প্রকার সুবিধা গুলো উপভোগ করতে পারবেন। গ্রহকগণ রাত দিন ২৪ ঘন্টা *247# ডায়াল করে বিকাশের সেবা গুলো উপভোগ করতে পারবেন।

কিভাবে বিকাশে ১৫০ টাকা বোনাস নিবেন

বিকাশ থেকে ১৫০ টাকা বোনাস নেওয়ার জন্য একাউন্ট খোলার পরে বিকাশ অ্যাপ এ লগইন করুন। লগইন করার পরে অ্যাপ থেকে নিজের নাম্বারে ২৫ টাকা মোবাইল রিচার্জ করলে পাবেন ৫০ টাকা ক্যাশব্যাক।

পরবর্তীতে শর্তবলী মেনে লেনদেন করলে পেয়ে যাবেন ১৫০ টাকা বোনাস। এই অফার সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে বিকাশের অফিসিয়াল ওয়েবসাইট ভিজিট করুন। 

বিকাশ সম্পর্কে কিছু প্রশ্ন এবং তার উত্তর

প্রশ্ন – একটি NID Card দিয়ে কয়টি বিকাশ একাউন্ট খোলা যায়?

উত্তরঃ আপনি একটি nid (এনআইডি) কার্ড দিয়ে একটি বিকাশ একাউন্ট খুলতে পারবেন। 

প্রশ্ন – বিকাশ অ্যাপ দিয়ে কি টাকা আয় করা যায়? 

উত্তরঃ হ্যা, আপনি বিকাশ অ্যাপ এর মাধ্যমে রেফার করে টাকা আয় করতে পারবেন।

প্রশ্ন – বিকাশ কাস্টমার কেয়ার নাম্বার কত / বিকাশ হেল্পলাইন?

উত্তরঃ আপনি ১৬২৪৭ বা ০২৫৫৬৬৩০০১ কল করে বিকাশ কাস্টমার কেয়ারে বা বিকাশ হেল্পলাইন কথা বলতে পারবের।

প্রশ্ন – বিকাশ একাউন্ট চেক কোড কত?

উত্তরঃ *২৪৭# ডায়াল করে বিকাশের একাউন্ট চেক করা সহ অন্যান্য বিষয় সম্পর্কে জানতে পারবেন।

আজকে আমরা কি শিখলাম

তাহালে, বন্ধুরা আজকে আমরা শিখলাম বিকাশ একাউন্ট খোলার নিয়ম সম্পর্কে। আশাকরি, আমার লেখা how to create bkash account in bangla আর্টিকেলটি সহজে বুঝতে পারছেন। আর যদি আর্টিকেলটি ভালো লাগে তাহলে নিচে কমেন্টে জানাবেন এবং অবশ্যই শেয়ার করবেন।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে