ব্লগিং (Blogging) শিখতে হলে কি কি বিষয়ে জানতে হবে

0
426
ব্লগিং (Blogging) শিখতে হলে কি কি বিষয়ে জানতে হবে
blogging

অনেক আমার কাছে জানতে চেয়েছেন কিভাবে ব্লগিং শুরু করবো। কারণ Blogging হলো বিশ্বের সবচেয়ে সফল ব্যবসা হিসাবে প্রমাণিত হয়েছে। আপনি হয়তো জানেন ব্লগিং করে টাকা আয়। তবে, তার জন্য আপনাকে কোনো প্রকার দক্ষতার দরকার হয় না। তাছাড়া আপনি নিজে নিজের মালিক। (ব্লগিং (Blogging) শিখতে হলে কি কি বিষয়ে শিখতে হবে)

আমি আগেই বলেছি ব্লগিং কি, কিভাবে ব্লগ সাইট বানাব, ব্লগ একাউন্ট কিভাবে খুলবো, ব্লগিং করে কত টাকা আয় করা যায় এসব বিয়ষে। এগুলো জানতে আমার পূর্বের আর্টিকেল গুলো পড়ুন। এজন্য আজকে আর পুরানো বিষয়ে কথা বলবো না। আজকে জানাবো ব্লগিং শিখতে কি কি বিষয়ে জানতে হবে। (ব্লগিং কিভাবে শিখব)

বর্তমানে ব্লগিং ক্যারিয়ার শুরু করতে হলে আপনাকে বিশেষ কিছু বিষয়ের দিকে নজর দিতে হবে। এই বিষয় গুলো নতুন ব্লগারদের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। তাহালে চলুন নিচে থেকে জেনে আসি সেই বিষয় গুলো। (কিভাবে ব্লগার হওয়া যায়)

ব্লগিং (Blogging) শিখতে হলে কি কি বিষয়ে জানতে হবে (blog bangla tutorial)

(১) ডোমেইন হোস্টিং

ব্লগিং শুরু করতে হলে প্রথমে আপনাকে একটি সুন্দর ডোমেইন নাম সিলেক্ট করতে হবে। অনেকে জানেনা ডোমেইন কি? আসলে domain হলো ওয়েবসাইটের নাম। আমরা সবাই ফেসবুক ব্যবহার করি তাই না। আসলে আপনি কি জানেন ফেসবুকের ডোমেইন নাম কি? Facebook domain name – www.facebook.com। ঠিক আপনি যখন একটি ব্লগ ওয়েবসাইট বানানোর কথা চিন্ত করবেন তখন আপনাকেও নিজের পছন্দ মতো একটি ডোমেইন ক্রয় করতে হবে।

অবশ্যই পড়ুন – ডোমেইন কেনার আগে যে বিষয় গুলো দেখে নিবেন? – ২০২১

ডোমেইনের পরে আপনাকে হোস্টিং (hosting) কিনতে হবে। হোস্টিং হলো ওয়েবসাইটের জায়গা। যেখানে আপনার কন্টেন্ট গুলো রাখবেন। যেমন আমরা মোবাইলে গান, ছবি রাখার জন্য মেমোরি কার্ড ব্যবহার করি। ঠিক তেমনি ওয়েবসাইটে প্রয়োজনীয় জিনিস রাখার জন্য হোস্টিং ব্যবহার করি। আশাকরি বুঝতে পারবেন ডোমেইন হোস্টিং কি এবং কেনো গুরুত্বপূর্ণ।

অবশ্যই পড়ুন – Expired domain বা পুরাতন ডোমেন কেন কিনবেন?

তবে, আপনারা ভালো এবং বিশ্বাসী কোনো ডোমেইন হোস্টিং কোম্পানি থেকে ডোমেইন হোস্টিং ক্রয় করবেন। বর্তমানে বাংলাদেশেও অনেক ভালো ভালো ডোমেইন হোস্টিং কোম্পানি রয়েছে। তাদের কাছ থেকে কম মূল্যে Domain Hosting কিনে ব্লগ ওয়েবসাইট বানিয়ে নিতে পারবেন।

(২) ওয়ার্ডপ্রেস বা ব্লগার

WordPress হলো একটি CMS software. যা ব্যবহার করে বিশ্বের ৩৪% ওয়েবসাইট তৈরি করা হয়। আপনাকে জানতে হবে ওয়ার্ডপ্রেস এর বিয়ষে। তবে, ওয়ার্ডপ্রেস জানতে হলে আপনাকে কোডিং জানা লাগবে না। আপনি বিভিন্ন প্লাগিন ব্যবহার করে সহজে সকল কাজ করতে পারবেন। মনে রাখবেন, ওয়ার্ডপ্রেস হলো একটি শক্তিশালী অনলাইন টুল (tool). আপনি যদি ওয়ার্ডপ্রস দিয়ে ব্লগ বানাতে চান তাহালে আপনাকে বেশ কিছু টাকা খরচ করতে হবে।

অবশ্যই পড়ুন – WordPress কি

                    Blogger কি

অন্যদিকে ব্লগার হলো গুগলের একটি ফ্রি সার্ভিস।  blogger দিয়ে ওয়েবসাইট তৈরি করতে হলে আপনি ফ্রিতে ৫ মিনিটে বানিয়ে নিতে পারবেন। এখানে ডোমেইন হোস্টিং সব কিছু গুগল (Google) দিয়ে থাকে। আপনি যদি সাধারন ব্লগ তৈরি করতে চান তাহালে ব্লগার দিয়ে তৈরি করুন। আর যদি প্রফেশনাল ভাবে ব্লগিং করতে চান তাহালে WordPress website তৈরি করুন।

(৩) এসইও (SEO)

প্রতিটা ওয়েবসাইটের জন্য এসইও (SEO) খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কারণ আপনার সাইটকে google search engine এ রেংক করার জন্য অবশ্যই এসইও করতে হবে। এজন্য আপনাকে seo জানতে হবে বা শিখতে হবে। কেননা এসইও ছাড়া কন্টেন্ট Google rank করবে না। আপনি যদি seo না জানেন তারপরেও On page seo শিখতে হবে। SEO শিখতে নিচের আর্টিকেলটি পড়ুন।

অবশ্যই পড়ুন – এসইও কি (SEO)

(৪) কন্টেন্ট মার্কেটিং বা সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং

ওয়েবসাইটে ভালো পরিমানে ট্রাফিক বা ভিজিটরর্স আনার জন্য কন্টেন্ট মার্কেটিং বা সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এটা হতে পারে ফেসবুক, ইনস্টগ্রাম, টুইটারে মার্কেটিং করা। তবে, ফেসবুক মার্কেটিং বেশি করা হয়। এর জন্য আপনার প্রয়োজন হবে একটি বড় ফেসবুক পেজ বা ফেসবুক গুরুপ। যেখানে লক্ষ লক্ষ মানুষারা জয়েন থাকবে। সেখানে আপনি যদি কন্টেন্টের লিংক শেয়ার করেন তাহালে ওয়েবসাইটে প্রচুর পরিমানে ভিজিটরর্স আসবে। আমি নিজেও সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং করি ব্লগের। জন্য।

(৫) রাইটার হতে হবে

ব্লগ তৈরি করার পরে আপনার প্রয়োজন হবে আর্টিকেল পাবলিশ করার। এর জন্য আপনাকে আর্টিকেল লিখতে হবে, যে বিষয়ে আপনার ভালো ধারনা আছে। ব্লগে নিয়মিতভাবে আর্টিকেল পাবলিশ করতে হবে। তাহালে ধীরে ধীরে আপনার ব্লগটি গুগলের কাছে বিশ্বত হয়ে যাবে। আর্টিকেল লেখার সময় আপনাকে কীওয়ার্ড রিচার্জ করে লিখতে হবে। তাহালে আপনি ভালো পরিমানে ট্রাফিক পাবেন গুগল থেকে।

আর আপনি যদি কন্টেন্ট লিখতে না জানেন তাহালে অনলাইন থেকে একজন কন্টেন্ট রাইটার ভাড়া করে তার কাছ থেকে কন্টেন্ট লিখে নিতে পারেন। অনলাইনে এমন অনেক রাইটার আপনি পাবেন। আপনি যদি আর্টিকেল লেখার নিয়ম জানতে চান তাহালে নিচের আর্টিকেলটি পড়ুন।

অবশ্যই পড়ুন – আর্টিকেল লেখার নিয়ম (কন্টেন্ট রাইটিং শেখার উপায়)

আজকে আমরা কি শিখলাম

তাহালে, আজকে আমরা শিখলাম প্রফেশনাল ভাবে ব্লগিং (blogging) শিখতে হলো কি কি বিষয়ে প্রথামিক ধারণা রাখতে হবে। বন্ধুরা আমার এই লেখাটি যদি আপনাদের কাছে ভালো লাগে তাহালে শেয়ার করতে ভুলবেন না। আর Blogging সম্পর্কে এমন নতুন নতুন তথ্য জানতে নিয়মিত আমাদের এই ওয়েবসাইটটি ভিজিট করুন।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে