টুইটার কি? কিভাবে ব্যবহার করবেন (বিস্তরিত)

অনলাইন সোশ্যাল মিডিয়া ওয়েবসাইট গুলোর মধ্যে জনপ্রিয় একটি প্লাটফার্ম হলো Twitter অনেকে টুইটার সম্পর্কে জানেন না। তাই আজকের এই আর্টিকেলে আমি আপনাদের বলবো টুইটার কি (what is Twitter) এর ব্যাপারে।

টুইটার হলো একটি আমেরিকান Micro blogging এবং সোশ্যাল মিডিয়া সার্ভিস। যেখানে একজন ইউজার পোষ্ট এর মাধ্যমে বিভিন্ন তথ্য সহ মনের ভাব অন্যান্য টুইটার ইউজারদের সাথে শেয়ার করতে পারে।

টুইটার ইউজারদের করা বিভিন্ন ধরনের পোষ্টকে বলা হয় Tweets. আপনি টুইটার একাউন্ট তৈরি না করেও অন্যান্য টুইটার ইউজার দের টুইট বা পোষ্ট গুলো দেখতে পারবেন।

তবে, আপনি যদি টুইটারে tweets, retweets, like, message ইত্যাদি গুলো করতে চান তাহালে আপনার একটি টুইটার একাউন্ট এর প্রয়োজন হবে। এমনিতে বর্তমানে আমাদের প্রায় সবার একটি টুইটার একাউন্ট রয়েছে।

কিন্ত, এখনো এমন অনেক মানুষরা যারা টুইটার এর বিষয়ে তেমন কিছু জানে না। হয়তো অনেকে টুইটার এর নাম শুনেছেন, কিন্ত ব্যবহার করার প্রক্রিয়া হয়তো অনেকে জানে না। যার ফলে ব্যবহার করতে দ্বিধাবোধ করেন।

মনে রাখবেন, Twitter account বা Twitter website ব্যবহার করা অনেক সহজ। ফেসবুক বা অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া ওয়েবসাইট এর তুলনায় এর User interface অনেক ভালো।

তাহালে, চলুন নিচে থেকে জেনে আসি টুইটার কি (what is Twitter), টুইটার এর প্রতিষ্ঠিতা কে, টুইটার ব্যবহারের নিয়ম, টুইটার এর কাজ সম্পর্কে বিস্তরিত ভাবে আলোচনা করবো।

টুইটার কি? (what is Twitter)

Twitter হলো একটি অনলাইন সোশ্যাল মিডিয়া ওয়েবসাইট যার মাধ্যমে আপনারা অনলাইনে message, image, information মানুষের সাথে শেয়ার করতে পারবেন। এখানে আপনি যে পোষ্ট (post) মানুষের কাছে শেয়ার করবেন তাকে Tweets বলে।

মনে রাখবেন, একটি টুইট ১৪০ শব্দের বেশি হতে পারবে না। কিন্ত, ২০১৭ সালে non asian language এর ক্ষেত্রে সেটা বাড়িয়ে ২৮০ শব্দে দেওয়া হয়েছিলো। আসলে এটা এমন একটি প্লাটফার্ম যেখানে আপনি অনেক কম শব্দের মধ্যে মনের ভাব প্রকাশ করতে পারবেন।

এমনিতে Twitter অনেক জনপ্রিয় একটি প্লাটফার্ম। যেখানে বেশি ভাগ অভিনেতা, অভিনেত্রী, সমাজকর্মী, প্লেয়ার, রাজনীতিক ব্যাক্তি সহ আরো বিভিন্ন ব্যাক্তিরা একাউন্ট তৈরি করে তাদের মনের ভাব প্রকাশ করেন।

টুইটার একাউন্ট খোলা এমনিতে অনেক সহজ। যেকোনো মানুষরা একটি Email ID এবং Mobile number এর মাধ্যমে twitter account তৈরি করতে পারে। 

এখানে আপনি নিজের ইচ্ছা মতো যেকোনো twitter user কে follow করে রাখতে পারবেন। যাতে সেই ইউজারের ভবিষ্যতে করা প্রত্যেকটি টুইট দেখতে পাবেন। এই পোষ্ট গুলো হতে পারে image, video, text ইত্যাদি।

আশাকরি, টুইটার কি (what is twitter) এই সম্পর্কে বুঝতে পারছেন।

টুইটার এর সম্পর্ন নাম কী?

টুইটার এর অপর নাম আপনাদের মধ্যে হয়তো অনেক জানেন না। তবে, হা Twitter এর সম্পর্ন বা ফুল নাম হলো,

Typing What I’m Thinking That Everyone’s Reading

টুইটার এর সিইও (CEO) কে?

ফেসবুকের সিইও (CEO) এর মতো টুইটারের ও একজন সিইও (CEO) রয়েছে। যার নাম হলো Jack Patrick Dorsey.

টুইটার এর প্রতিষ্ঠাতা কে?

২০০৬ সালের ২১ মার্চ টুইটারের যাত্র শুরু হয়। টুইটারের প্রতিষ্ঠাতা হলো Jack Dorsey, Noah Glass, Biz Stone এবং Evan williams. প্রথম থেকে এই সোশ্যাল মিডিয়াটি ভালো জনপ্রিয়তা লাভ করেন। সারা বিশ্বে twitter এর অফিস তৈরি করা হয় ২৫ টির ও বেশি পরিমানে।

২০০৯ সালে টুইটার এর জনপ্রিয়তা এতোটা বৃদ্ধি পেলো যে ইন্টারনেটে এই সোশ্যাল মিডিয়া রেংক ২২ নম্বার থেকে ৩ নম্বার স্থানে চলে আসে। ২০১০ সালে টুইটারে প্রতিদিন ৬৫ মিলিয়ান টুইট বা পোষ্ট করা হতো।

তারপরে ২০১২ সালের মধ্যে ১৪০ মিলিয়ান ইউজার হয়ে গেছিলো এবং প্রত্যেকদিন প্রায় ৩৪০ মিলিয়ান টুইট বা পোষ্ট করা হতো। এর পর থেকে twitter এর জনপ্রিয়তা দিনের পর দিন বৃদ্ধি পেতে থাকলো।

টুইটার এর কাজ কি?

Twitter হলো একটি micro blogging সোশ্যাল নেটওয়ার্ক ওয়েবসাইট। যেখানে সারা বিশ্বের বিভিন্ন ধরনের জনপ্রিয় বাক্তিরা সংযুক্ত থাকেন। আপনি যদি প্রশ্ন করেন টুইটার এর কাজ কী, তাহালে বলা যেতে পারে,

টুইটার এমন একটি মাধ্যম যার ব্যবহার করে নিজের মনের ভাব, বিচার-বিবেচনা, অভিজ্ঞতা, জ্ঞান সহ আরো নানা বিষয়ে অন্যান্য ইউজারদের সাথে শেয়ার করা। বিশ্বের অন্যান্য মানুষের সাথে ইন্টারনেটের মাধ্যমে আমাদের সংযুক্ত করানোটাই হলো টুইটারের কাজ।

প্রতিদিন টুইটার এর মাধ্যমে লক্ষ লক্ষ মানুষরা tweets বা post করছেন, যাতে নতুন নতুন অনেক বিষয়ে জানা যাচ্ছে। এই পোষ্ট গুলো হতে পারে নিজের বিষয়ে বা অন্যদের বিষয়ে।

আর যত পরিমানে মানুষরা পোষ্ট করছেন তার থেকে অনেক বেশি সংখ্যাক মানুষরা এই নতুন নতুন টুইট গুলো পরছেন। মূলত টুইটারের কাজ হলো একজন ব্যাক্তিকে আরো একজন ব্যাক্তির সাথে সংযুক্ত করে রাখা।

আশাকরি, টুইটারের কাজ কি সহজে বুঝতে পারছেন।

Twitter এর ব্যবহার

অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গুলোর ব্যবহারের মতো টুইটার এর ৬ টি জনপ্রিয় ব্যবহার আমি নিচে উল্লেখ করছি।

  • নিজের ব্লগ, ওয়েবসাইট, বিসনেস এবং ব্র্যান্ড এর অনলাইনে প্রচার করার সেরা মাধ্যম।
  • বিশ্বের যেকোনো জায়গা থেকে নতুন নতুন মানুষের সাথে সংযুক্ত হওয়ার সুযোগ রয়েছে।
  • বিভিন্ন দেশের জনপ্রিয় ব্যাক্তিদের সাথে সংযুক্ত হওয়ার সুযোগ রয়েছে।
  • টুইটারের মাধ্যমে যেকোনো জায়গার খবর অনেক দ্রুত টুইট এর মাধ্যমে জানতে পারবেন।
  • বিশেষজ্ঞ ব্যাক্তিদের থেকে বিভিন্ন বিষয়ে শেখার সুযোগ রয়েছে।
  • আপনার মনের ভাব অন্যদের সাথে প্রকাশ করার জন্য টুইটার এর প্রচুর ব্যবহার করা হয়।

Twitter কিভাবে ব্যবহার করবেন?

আমি প্রথমে বলেছি টুইটার ব্যবহার করার নিয়ম অনেক সহজ। আপনার যদি একটি টুইটার একাউন্ট থাকে তাহালে, Twitter mobile app বা twitter website এর মাধ্যমে twitter use করতে পারবেন।

Twitter কিভাবে ব্যবহার করবেন
Twitter কিভাবে ব্যবহার করবেন

টুইটার একাউন্ট তৈরি করার পরে মোবাইল অ্যাপে বা ওয়েবসাইটে গিয়ে লগইন করলে আপনি উপরের ছবির মতো interface দেখতে পাবেন। আপনি একটু লক্ষ্য করলে দেখতে পাবেন, আমি twitter option গুলোর সাথে কিছু সংখ্যাক নম্বার ব্যবহার করেছি।

এই প্রতিটি নম্বার এর কাজ গুলো নিচে আমি আপনাদের এক এক করে বলে দিচ্ছি।

১. Home

প্রথম নম্বারে দেখতে পাচ্ছেন সেটার নাম হলো Home. এই home option এ ক্লিক করলে টুইটারের মূখ্য পেজে চলে যাবেন। এই হোম থেকে আপনারা প্রত্যেক ব্যাক্তির টুইট গুলো দেখতে পাবেন যাদের আপনি twitter এ follow করে রাখছেন।

২. Search

দ্বিতীয় নম্বারে রয়েছে search. এই search অপশনে ক্লিক করে আপনি অন্যান্য টুইটার ইউজারদের খোঁজ করতে পারেবন।

৩. Notification 

এটা হলো আপনার টুইটার একাউন্টের সাথে জড়িত প্রজ্ঞাপন। এখানে ক্লিক করে রাখলে আপনার একাউন্টের সাথে জড়িত প্রতিটা আপডেট এর বিষয়ে জেনে নিতে পারবেন।

যেমন- আপনাকে কে follow করলো, আপনার টুইট কে রিটুইট করলো, আপনার টুইট বা পোষ্টে কে like করলো। এই সকল বিষয়ে আপনাকে notification এর মাধ্যমে জানিয়ে দেওয়া হবে।

৪. Message

আপনার টুইটার একাউন্টে যদি কেউ message পাঠায় তাহালে এই message আইকনে ক্লিক করে জেনে নিতে পারবেন। তাছাড়া, আপনি যদি অন্যান্য টুইটার ইউজারদের সাথে কথা বলতে চান তাহালে এই মেসেজ অপশন থেকে সেটা করতে পারবেন।

৫. Tweet button

আপনি এই Tweet button এ ক্লিক করে আপনার মনের কথা, ছবি, ভিডিও সহ আরো বিভিন্ন বিষয়ে শেয়ার করতে পারবেন। এই অপশনটি টুইটারের একটি জরুরি অংশ হিসাবে ধরা হয়।

৬. Edit profile

টুইটার একাউন্টের এই edit profile এ ক্লিক করে প্রোফাইল সংযুক্ত বিভিন্ন বিষয়ে যুক্ত করতে পারবেন। যেমন – Username, Bio, Location ইত্যাদি।

বন্ধুরা আপনারা যদি উপরের এই অপশন গুলোর বিষয়ে জানেন তাহালে খুব সহজে টুইটার একাউন্ট ব্যবহার করতে পারবেন।

টুইটার এর সাথে জড়িত কিছু জরুরি শব্দ

আপনি যদি টুইটার একাউন্ট নতুন ব্যবহার করবেন বলে চিন্তা করছেন তাহালে অনেক রকমের শব্দের সাথে আপনার চেনা পরিচয় হবে। twitter ব্যবহার করার ক্ষেত্রে কিছু জরুরি শব্দ হলো,

  1. Twitter username 
  2. Tweet
  3. Retweets
  4. Followers
  5. Following
  6. Hash Tags (#)
  7. Feed
  8. Direct message

তাহালে চলুন নিচে থেকে উপরের বিষয় গুলো সম্পর্কে বিস্তরিত জেনে আসি।

১. Twitter username @

টুইটারে আপনি যখন একটি একাউন্ট তৈরি করবেন তখন আপনাকে একটি unique name দিতে হবে। প্রতিটা একাউন্টের একটি করে unique name থাকে, সেটা হলো username. আপনার username এর শেষে @ লেখা থাকবে।

একাউন্টে লগইন করার সময় এই username এবং পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন করতে পারবেন। আপনার এই username এর মাধ্যমে আপনাকে অন্যান্যরা follow করতে পারবে।

২. Tweets কি

টুইটার সোশ্যাল মিডিয়া নেটওয়ার্ক এর মাধ্যমে করা পোষ্ট গুলোকে বলা হয় টুইট (tweets). আপনি ১৪০ শব্দের মধ্যে টুইট করতে পারবেন।

৩. Retweets কি

Retweets মানো হলো অন্যদের পোষ্ট শেয়ার করা। আপনি যখন অন্যদের পোষ্ট গুলো শেয়ার করবেন, তখন সেই পোষ্ট নিজের প্রোফাইলে দেখতে পারবেন। তাছাড়া, যারা আপনার একাউন্ট  follow করে রাখছে তারাও এই শেয়ার করা পোষ্ট গুলো দেখতে পাবে।

৪. Followers

আপনি অন্যদের টুইটার প্রোফাইলে গিয়ে follow নামে একটি অপশন দেখতে পাবেন। এবার follow বাটুনে ক্লিক করলে আপনি তার profile follow করছেন। এবার তিনি যখন টুইট বা পোষ্ট করবেন তখন সেগুলো আপনি সেগুলো নোটিফিকেশন এর মাধ্যমে পেয়ে যাবেন।

৫. Following

আপনি যাদের profile এ গিয়ে follow অপশনে ক্লিক করছেন তার মানে হলো following. মানে আপনি অন্যদের follow করছেন। তারা যে tweet গুলো করবে সেগুলো দেখতে পাবেন।

৬. Hash tags(#)

টুইটারে পোষ্ট করার সময় এই #হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করা হয়। যেমন- #Twitter, #blogger, #টুইটার কি ইত্যাদি। আপনি যখন hash tags ব্যবহার করবেন তখন এটা গুরুপের মতো কাজ করবে। বিশেষ বিশেষ ক্ষেত্রে এই হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করা হয়।

৭. Direct message

টুইটার ইউজারদের সাথে আপনি পার্সোনাল ভাবে মেসেজ করতে পারবেন। এই personal বা private message করাকে বলা হয় Direct message.

আজকে আমরা কি শিখলাম

তাহালে, বন্ধুরা আজকে আমরা জানলাম টুইটার কি (what is Twitter), টুইটার এর কাজ, Twitter এর ব্যবহার সহ আরো জরুরি বিষয় গুলো সম্পর্কে। আপনি যদি এখনো টুইটার একাউন্ট ব্যবহার না করে থাকেন, তাহালে আজই একবার ব্যবহার করে দেখেন।

Leave a Comment

Share via
Copy link
Powered by Social Snap